ওজন কমানোর প্রথম ধাপ কি ডায়েট চার্ট সংগ্রহ করা?

0
3352
ওজন কমানোর প্রথম ধাপ কি ডায়েট চার্ট সংগ্রহ করা?

আসুন আজ আমরা এই বিষয়ে খুব সহজ ভাষায় কিছু জিনিস বোঝার চেষ্টা করি। শুরুতেই বলে নেই, আমি এই গ্রুপের এডমিন, আপনাদের সেসব নিয়ম/গাইডলাইন দিয়েছি/দিব যেসব আমি আমার নিজের উপর প্রয়োগ করে রেজাল্ট পেয়েছি বা ভাল মনে হয়েছে আমার। আমি কোনো ধরাবাঁধা লো ক্যালরির চার্টের চাইতে হেলদি খাবার খেয়ে ধীরেধীরে পার্মানেন্টলি ওজন কমানোতে বেশি বিশ্বাসী। 🙂

চলুন শুরু করা যাক। নিজেকে প্রশ্ন করুন তো কেন আপনাকে আজ এই গ্রুপে জয়েন করতে হলো? কি কারণে? যদি আমাকে উত্তর দিতে হতো, বলব কারণ প্রধাণত ৭টা –

১/খাদ্যগুণ সম্পর্কে আমার ধারণা ছিল না।
২/জিহ্বায় যা মজা লাগত তাই খাইতাম।
৩/খুদা না লাগলেও খাইতাম।
৪/ ক্যালরি কি, কোন খাবার খেলে শরীরে কত ক্যালরি প্লাস মাইনাস হচ্ছে এসব জানার আগ্রহ ছিল না।
৫/ক্যালরি বার্ণ হয় – এটাও জানা ছিল না।
৬/ঘুমের ঠিকঠিকানা ছিল না।
৭/ ব্যক্তিগত হতাশা।

ধরে নিচ্ছি, আমরা সবাই একই ক্যাটাগরির। (ব্যতিক্রম আছেন হয়ত অনেকে, আমি অধিকাংশের হিসাবে লিখছি) তো, এসবকিছু একটা পর্যায়ে আপনাকে স্থুলকায় বানিয়ে দিবে। তবুও আপনার হুশ আসবে না।

বন্ধুরা পঁচাবে, রিক্সাওয়ালা রিক্সায় উঠাবে না, ফ্যামিলি মেম্বার খাওয়া নিয়ে খোটা দিবে, শোরুমে আপনার সাইজের কাপড় পাওয়া যাবে না, সিঁড়ি বেয়ে উঠানামা করতে পারবেন না, অলসতা ভর করবে, এক সময়ে নিজের ওজন বইয়ে নিয়ে এক গ্লাস পানি নিয়ে খেতেও কষ্ট লাগবে, রক্তে কোলোস্ট্ররেল বাড়বে, হৃদরোগ জনিত উপসর্গ দেখা দিবে, বাংলা কমোডে উঠতে বসতেই কষ্ট, মেয়েলী সমস্যাগুলা হবে প্রকট, পিরিয়ডে কষ্ট বাড়বে, ডাক্তার বলবে ওজন কমানো ছাড়া বাচ্চা নিতে পারবেন না, চর্বির স্তুপে স্তুপে ঘা হয়ে যাবে, রানে ফাটা ফাটা দাগ পরবে, হাটতে গেলে এক থাইয়ের সাথে অন্য থাই ঘষর্ণের ফলে ছিলে যাবে, জ্বলবে খুব…. আপনি পরিচিত হয়ে উঠবেন মটু অমুক… মুটি তমুক নামে….

অবশেষে হয়ত আপনার হুশ ফিরল। ভুল 😃 আসলে হুশ ফিরে নাই। এত এত অপমান, কষ্ট, পরনির্ভরশীলতা সইতে সইতে আপনার জাস্ট মনে হলো এইবার ওজন কমানো দরকার। কিন্তু হায়! অপ্রিয় সত্য এটাই, হুশ ফিরে আসা আর ওজন কমানোতে অনেক অনেক তফাৎ, অনেক দূরত্ব!

হুশ ফিরে আসা মানুষ গুলা প্রথমে কি করে জানেন? এই গ্রুপে ঢোকার জন্য পাগল হয়ে যায়। ঢুকার পর প্রথম কাজ কি করে জানেন? একটা ডায়েট চার্ট খোঁজে 😃 আমার কাছেও খোঁজে, রাতুলের চার্টও নেয়, সাজেদরেও নক দেয়, পিংকি আপারেও নক দেয়… কেউ কেউ এমনভাবে নিজের কষ্টের কথা লিখে চার্ট চায়, এমন তাড়া দিতে থাকে যদি ৫মিনিট দেরি হয় চার্ট দিতে যেন এখনি ৫কেজি বেড়ে যাবে 😃 আদতে যারা নক দিছে তাদের মধ্যে ৮০% ই সেসব ফলো করে নাই। 🙂 কেন বলছি এই কথা? গ্রুপের বয়স ২বছরের বেশি। গ্রুপের জন্ম থেকে শুধুমাত্র Ratul Dutta ই প্রায় ৪০০০+ মানুষ কে চার্ট দিছে 😃 সাজেদ দিছে ৫০০+ 😃 আর বাদ বাকিদের কথা না হয় গণায় ধরলাম না। তো, এতগুলা মানুষ যে চার্ট নিল, তারা কই? তাদের আপডেট কই? 😃 আমি তো বেশ অনেকজন কে নিজ থেকে ইনবক্স করে জিজ্ঞেস করি আপডেট দেয়ার জন্য। কারন তারা এত তাড়াহুড়া করল চার্টের জন্য! অথচ আপডেট নাই! কেন নাই? কারণ তারা চোখ খুলে ঘুমায়। তারা এখনো বাড়তি ওজনের ফলশ্রুতিতা কি পরিমাণ কষ্টদায়ক হতে পারে সেসব অনুভব করতে পারে নাই। হয়ত অনেকে আমাকে রুড বলতে পারেন, তবুও বলি, কিছু মানুষের মেন্টালিটি এমন – স্বেচ্ছাসেবক রা তো ফ্রি তেই সেবা দিচ্ছে। ফ্রি যখন, নিয়েই নেই, ফলো করলে করলাম না করলে নাই 🙂

দীর্ঘ দুইবছরের অভিজ্ঞতায় বলছি, যাদের ওজন কমানোর তাড়া থাকে বেশি, তারাই ওজন দেরিতে কমাতে পারে 🙂 আগেও বলেছি, আবারো বলছি, ওজন কমানো একটা সাধনার কাজ। এজন্য সবার আগে দরকার নিজের প্রতি ভালবাসা, নিজের প্রতি সততা, নিজেই নিজের সমালোচনা করার সাহস, ওজন কমানোর ইচ্ছাশক্তি আর ধৈর্য। এসবকিছু আগে রপ্ত করতে জানতে হবে। তারপর বুঝবেন আপনি এবার ওজন কমানোর জন্য তৈরি।

কি করবেন এরপর? ডায়েট চার্ট সংগ্রহ করবেন? না। একবার ভেবে দেখুন তো আপনার আগের লাইফ স্ট্যাইল, খাদ্যাভ্যাস কি ডায়েট জীবনের সাথে মিলে কিনা? আকাশপাতাল তফাৎ! এই তফাৎ এক, দুইদিনে ঘুচবে না। নিজেকে সময় দিতে হবে। নিজের শরীর কে এক্সারসাইজের জন্য প্রস্তুত করতে হবে। কোন খাবারে কত ক্যালরি – শুধু এসব জানলে চলবে না। হেলদি খাবার সম্পর্কে আইডিয়া নিতে হবে। কোনটা ডায়েট বান্ধব আর কোনটা ডায়েট বিরোধী খাবার চিনতে হবে। আপনি যখন এসবের সাথে আপোষ করতে পারবেন, দেখবেন এসব করতে করতেই আপনি অনেকটা ওজন কমিয়ে ফেলেছেন। এবার আপনি আপনার বাড়তি ওজন কমানোর জন্য প্রস্তুত। আপনার শারীরিক অবস্থা বুঝে একটা নির্দিষ্ট চার্ট ফলো করুন। ৩-৪ লিটার পানি খান। দিনে ১ঘন্টা হাটুন। জীবন বদলে যাবে। শুধু আপনার না। আপনার পরিবারেরও। কারণ যারা একবার নিজেদের বদলাতে পারে, তারা নিজের পরিবারের সবার স্বাস্থ্যের প্রতি আরো যত্নবান হবে, যাতে তার আগের অবস্থায় পরিবারের অন্য কেউ না যায়। 🙂

আর একটা রিকোয়েস্ট, আমাদের শ্রমের মূল্যায়ন করুন প্লিজ। আপনি যদি সত্যি সত্যি ওজন কমাতে চান, নিজের সর্বোচ্চ চেষ্টা করেন, আমরাও আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাব আপনার জন্য। শুভকামনা রইল। 🙂

#ওজন_কমবেই

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry
273

পাঠকের মতামতঃ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here