Mn Pa

0
2022
Mn Pa

বিফোর আফটার পিক দিলাম <3 আমি শারমিন আক্তার(টুম্পা) বাবার+শশুরেরর গ্রামের বাড়ি বিক্রমপুরে আর স্বামির বাড়ি মিরপুরে।বিজনেস এর কারনে বর্তমানে পন্ঞগরে ও বাড়ি শাশুরি জা থাকে আমরাও ছিলাম।আমরা বতর্মানে মিরপুরেই স্যাটেল।বয়সঃ ২৫ ফেব্রুআরি তে পরে।আমি ছোটবেলা থেকে কহিল ই ছিলাম ২০০৯এ SSC এক্সাম এর পরে ব্লু কালারের ড্রেস পরাটা 🙂 আবার ২০০৯ ই জুন এ কাবিন অক্টোবরে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয় তখন ও ঠিক ছিল ওয়েট বছর দের পর সবাই +জামাই বেবী নেবার কথা কনসিভ ও হলো বাট ৩,৪ মাস পর প্রব হয় পরে বেডরেষ্ট এ থাকি তারপরও এব্রশন 🙁 তখন থেকে এই সেই উল্টা পল্টা ভিটামিন পন্ঞগর ডাঃ এর আস্তে আস্তে ৫৫তারপর ৬০ পরে এ পরে পন্ঞগর থেকে ঢাকায়ই থাকা হয়।ঢাকা মেডিকেল এর শিশু ডাঃফরিদা আমার ননদ ওর কথায় ধানমন্ডি পপুলারে ডাঃ কহিনূর ম্যাম কে দেখাই ওখানে আমার থাইরয়েড ধরা পরে সে বলে আমার লিভারে ও চর্বি। পরে হরমোনে ঔষদ দেয়।এর মাঝে আরো অনেক ডাঃ দেখাই পরে টি এ চৌঃওয়াইফ কে দেখাই ফরিদা ক্লিনিক শান্তিনগরে সে আবার থাইরয়েড এর জন্য ধানমন্ডি ডিফাম হসপিটাল এ পরে যাই হোক আবার বাবু নিবো পরে কনসিভ হলো পুরাই বেডরেষ্ট সারে ৪মাসের বাচ্চার হার্টবিট নাই আর সাইজ ও নষ্ট পেটে মারা গেছে ডিএনসি (এটা নিয়ে ২বার) পরে আরো মোটা হলাম ৮৫ সবচেয়ে বড় কথা বলি নাই আমি আমার জামাই ২জন এ ই বাইরে প্রাই খেতাম খুবই পছন্দ করতাম। অনেক সময় রান্না না করে আমাদের কেয়ার টেকার কে দিয়া বাইরের খাবার আনাইতাম।আর তেমন মাংস ছারা রান্না ও পারতাম না আমার মা সেরা রাধূনি আর আমি যা ই শিখছি শাশুরির থেকেই আর পন্ঞগর থাকতে শশুর বাড়ির ভয়ে তারাতারি উঠতাম মিরপুরে তেমন কোন চাপ বা কথার ভয় ওছিল না অনেক রাতে খাওয়া হতো অনেক দেরিতে উঠতাম এগুলাই আমার জিবনের বড় পাপ ছিল।পরে আবার বেডরেষ্ট ৩মাসের বাবু এব্রশন এভাবে খুবই হতাশায় ছিলাম আমি নিরাশ হইছি বাট জামাই সব সময় বলতে ধৈর্য ধরতে শশুর বািড়র করো সাপর্ট পাইনাই শুধু জামাইর ছারা আর বাবার বাড়ির সবার পরে আবার কনসিভ করি পরে বাবুর সময় ফুল খুবই নিচে ছিল টি এ চৌঃ বলে আমাদের কিছু করার নাই আল্লাহ চাইলে থাকবে :'( পলিটন ডিপুট দিতে দিেত কমর ঝাঝরা প্রাই ৪৫ টা হবে তাও ব্লেডিং তাও ৭মাস পুরা বেডরেষ্ট শুধু গোসল তাও ৩, ৪ দিনপর এভাবে চলতে চলতে ৭মাসে ৩৪ সাপ্তাহে সমস্যা হয় ডাঃসিজার করবেই না পরে দেখে আমার বাবু ২জনের ই বিপদ পরে বাবু আরাই পাওন্ড হয়।তার পর ও সমস্যা কাটে না সিজারের সময় ১টাপার্ট রেখেই কসমেটিক সার্জারি করে এমনিতে ৯৫ ওজন হয় তেমন বুঝতে পারি নাই ৩মাসের সময় ধরা পরে এর পরে অনেক আস্ত হাটি নিচে কম বসি মোটা আর কমে না এটা খাই ওটা করি চার্ট আনি ডঃ থেকে সব কিছু কিনি কিছুই করি না ৫মিনিটে র পথ হাটতে চাইতাম না।বাসার সাথেই জিম ভাবলাম করবো বাট তারা আমাকে নিবে না ডাঃপরামর্শ ছারা।পরে আমার এক স্কুলের বন্দু আমাকে মটু গ্রুপে এড করায় পরে আসতে আসতে আমি ভাবি শাড়িতে জামাকাপরে মানায় না রেডিমেড জামাকাপড় কিনে এনেও অন্যকে দিতে হয় আগের সুন্দর শরি ড্রেস কিছুই লাগে না পরে ভাবি মড়িবাচি আগে কাহিল হই আগে গরুর মাংস ৩,৪বার সাপ্তাহে খাওয়া হতো আমাদের নিচের ভারাটিয়া মাংসের বিজনেস ভালো হলেই পাঠাতো কিনালাগতো পরে সব বাদ দিলাম হাটাহাটি,নাচানাচি শুরু রাতুল ভাইয়ার চার্ট ও ফলো করতাম, সাইকেল কিনলামা আসতে ৭৫ এর নিচে আসলাম 🙂 আরো কমছি মানুষের কথায়। হাতি কত কিছু বলতো কেও কেও :'( খুব খারাপ লাগে কেন যে মোটা হলাম তা তো তোমরা বুঝলা না। কি যে দূর্বল লাগতো প্রাই শুয়ে থাকতাম আর এখন শুয়া তো দুরের কথা।দোড়াইতে মন চায় 😛 এখোন ও অনেক দুর যেতে হবে সবাই দোয়া করবেন

Like
Like Love Haha Wow Sad Angry

পাঠকের মতামতঃ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here